শিরিনের সন্ধানে নেমে শিশুকন্যার দেহ উদ্ধার


শিরিনের সন্ধানে নেমে শিশুকন্যার দেহ উদ্ধার

ফাইল ফোটো


গ্লাসের দুধ শেষ না করার শাস্তি হিসাবে ভারতীয় দত্তক মেয়েকে ঘরের বাইরে দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন বাবা। কিছু পরে সে নিখোঁজ হয়ে যায়। শেষবার তাকে দেখা গিয়েছিল রিচার্ডসন এলাকায় তার বাড়ির বাইরে।
গতকাল রিচার্ডসন পুলিশ জানিয়েছে, তারা রাস্তার নিচে টানেল থেকে একটি শিশুর দেহাবশেষ উদ্ধার করেছে। তাদের আশঙ্কা, এটি শিরিনের দেহ। যদিও তারা শিশুটির পরিচয় নিশ্চিত করেনি। শিরিনের বাড়ি থেকে প্রায় অর্ধেক মাইল দূরে মৃতদেহটি পাওয়া যায়।

তদন্তে নেমে পুলিশ সেন্ট্রাল এক্সপ্রেসওয়ের পূর্বদিকে স্প্রিং ভ্যালি এবং বোসার রোডের কাছে একটি এলাকা বন্ধ করে দেয়। গত শনিবার সকাল ১১টা নাগাদ দেহটি উদ্ধার করা হয়। অনুসন্ধানে পুলিশ কুকুরের সাহায্য নেওয়া হয়। যদিও শিশুটির কীভাবে মৃত্যু হল, সে সম্পর্কিত কোনও তথ্য পুলিশ প্রকাশ করেনি। দেহটি শনাক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানানো হয়েছে পুলিশের তরফে। খতিয়ে দেখা হচ্ছে মৃত্যর কারণ।

নিখোঁজের ঘটনা সামনে আসতেই শিরিনের পালিত বাবা ওয়েসলি ম্যাথুজ়কে পুলিশ গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে অবশ্য ২ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলারের বন্ডে ছাড়া পান তিনি।

রিচার্ডসন পুলিশ জানিয়েছে, ওয়েসলি ম্যাথুজ় আদতে কেরালার বাসিন্দা। পুলিশকে ওয়েসলি জানিয়েছে, সে শিরিনকে দত্তক নিয়েছিলেন। শনিবার রাতে তাকে দুধ খেতে দেন। কিন্তু শিরিন গ্লাসের পুরো দুধ শেষ না করায় তাকে বাড়ির বাইরে বের করে দেন তিনি। বাড়ির পাশের একটি গাছের তলায় রাত তিনটে পর্যন্ত দাঁড়িয়ে থাকার কথা বলেন। ১৫ মিনিট বাদে গিয়ে ওয়েসলি দেখতে পান শিরিন সেখানে নেই। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তাকে পাওয়া যায়নি।

ওয়েসলি জানিয়েছেন, খানিকক্ষণ খোঁজার পর তিনি জামাকাপড় কাচতে ভিতরে চলে যান ও সকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেন। প্রায় ৫ ঘণ্টা পর শিরিনের নিখোঁজের বিষয়টি পুলিশকে জানান ওয়েসলি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*