শতাব্দীর শেষে বিশ্বের ৪০ শতাংশ মানুষ হবে আফ্রিকান

ইউনিসেফের প্রতিবেদনটির শিরোনাম, ‘প্রজন্ম ২০৩০/আফ্রিকা’৷ ২১০০ সালের মধ্যে বিশ্বের জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ হবে আফ্রিকান৷ ২০৫০ সালের মধ্যে আফ্রিকায় শিশুদের সংখ্যা ১০০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে৷

‘‘২০১৫ থেকে ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের জনসংখ্যা যে ২২০ কোটি বাড়ার কথা, তার অর্ধেকের বেশি ঘটবে আফ্রিকায়,” রিপোর্টটিতে বলা হয়েছে, যদিও আফ্রিকা মহাদেশে জনসংখ্যাবৃদ্ধি ধীরৈ ধীরে আবার স্বাভাবিক হয়ে আসবে৷

Infografik Africa's child population will reach 1 billion by 2055 ENG

আফ্রিকায় সন্তানধারণের বয়সের মহিলাদের সংখ্যা বেড়েছে ও মহিলারা গড়ে ৪ দশমিক ৭টি সন্তানের জন্ম দেন৷এ ক্ষেত্রে বিশ্বের গড় হলো মহিলা পিছু ২ দশমিক ৫টি সন্তান৷ শিশু বিবাহের ফলে কিশোরীরা স্কুলে না গিয়ে খুব কম বয়সে সন্তান জন্ম দেয়৷ নাইজারে মহিলা প্রতি সন্তানের সংখ্যা ৭ দশমিক ৫৷

প্রতিবেদনে আফ্রিকার দেশগুলির প্রতি জনস্বাস্থ্যের বুনিয়াদি প্রয়োজনগুলি মেটানোর ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে৷ দশজন আফ্রিকানের মধ্যে ছয় জনের জন্য কোনো শৌচালয় নেই৷ আফ্রিকায় গড়ে প্রতি ১,০০০ মানুষের জন্য ১ দশমিক ৭ জন পেশাদারি চিকিৎসাকর্মী রয়েছেন৷অথচ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংগঠন ডাবলিউএইচও-র নির্ধারিত মান হলো ৪ দশমিক ৪৫৷

আফ্রিকার জনসংখ্যাগত কাঠামোয় এই ব্যাপক পরিবর্তনের মোকাবিলা করার জন্য বিপুল বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে৷ নইলে বিপজ্জনক রাজনৈতিক স্থিতিহীনতা ও বিপুল সংখ্যক মানবাধিকার সংক্রান্ত বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে রিপোর্টটিতে সাবধান করে দেওয়া হয়েছে৷

নাইজেরিয়ার দিকে চোখ

‘জেনারেশন ২০৩০: আফ্রিকা’ রিপোর্টে বিশেষ করে নাইজেরিয়ার দিকে দৃষ্টিপাত করতে বলা হয়েছে, কেননা, বিশ্বের মধ্যে জন্মের হার ও শিশুদের সংখ্যা নাইজেরিয়াতেই সর্বোচ্চ৷

Infografik Population by age and sex in Africa (in millions)

২০১৫ সালের মধ্যে আফ্রিকায় শিশুজন্মের প্রায় এক-পঞ্চামাংশ ঘটেছে শুধু একটি দেশে, সে দেশ হলো নাইজেরিয়া৷ পরোক্ষভাবে বিশ্বের সব শিশুজন্মের পাঁচ শতাংশ ঘটে থাকে নাইজেরিয়ায়৷ কাজেই রিপোর্টে মহিলাদের প্রজনন সংক্রান্ত স্বাস্থ্য সেবার সুযোগ প্রদান ও মেয়েদের শিক্ষা ও ক্ষমতায়নের উপর জোর দিতে বলা হয়েছে৷

‘‘চূড়ান্ত পরিসংখ্যানে নাইজেরিয়ায় ২০৩১ সালে থেকে ২০৫০ সালের মধ্যে অতিরিক্ত ২২ কোটি ৪০ লাখ শিশু যোগ হবে (যা কিনা আফ্রিকার সমগ্র শিশুজন্মের ২১ শতাংশ ও বিশ্বের শিশুজন্মের আট শতাংশ)৷”

তবে আফ্রিকায় শিশুমৃত্যুর হার কমেছে ও গড় আয়ু কিছুটা বেড়েছে৷ তবুও বিশ্বের যাবতীয় শিশুমৃত্যুর অর্ধেক ঘটে থাকে আফ্রিকায়৷

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*