লিড জেনারেশনের গেস্ট ব্লগিং কেন করবেন


Matt Cutts যখন বলেছিল “Guest Blogging is Dead” সে আসলে তখন লিঙ্ক বিল্ডিং কেই এসইও হিসেবে ধারনা করত। কিন্তু গেস্ট ব্লগিং আসলে শুধুমাত্র লিঙ্ক বিল্ডিং না। উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই, আমি আসলে এখানে বড় কোন লিস্ট নিয়ে কথা বলবনা। তাই আশা করি বোর হবেন না। কিভাবে গেস্ট ব্লগিংকে অপটিমাইজ করে পাঠকদের উপভোগ্য করে ROI বৃদ্ধি করে আপনার বিজনেসকে উপরে নিয়ে যেতে পারবেন সেই বিষয়টিই আজকের আলোচনার বিষয়। এই আলোচনাটি অবশ্যই আপনার জন্য শিক্ষণীয় হবে এবং আপনাকে আপনার লক্ষে নিয়ে যেতে সহায়তা করবে।

নিম্নের কিছু বিষয় মাথায় রেখে আমাদের অগ্রজ প্রজন্মের জন্য গেস্ট ব্লগিং করা উচিত –

১। ওথরিটি হিসেবে নিজেকে গঠন করাঃ গেস্ট ব্লগিং এর ক্ষেত্রে অথার যখন নিজের সম্পরকে ধারনা দিবে তখন ওইখানে সে একটা লিঙ্ক দিয়ে রাখতে পারে। এটা আপনাকে পাঠকদের কাছে ইন্ডাস্ট্রির লিডার ভাবতে সহায়তা করবে।আপনি যখন কাউকে জানাতে পারবেন যে আপনি একটা কোম্পানিতে কর্মরত এবং আপনি যেটা বলেছেন সেটা ওই রিলেটেড তখন সেটা অনেকটা বিশ্বাসযোগ্য হয়ে যাবে। আর আপনি যখন আপনার ক্লায়েন্ট এর কাছে বিশ্বাস অর্জন করতে পারবেন তখন আপনার যুদ্ধটা অর্ধেক হয়ে যাবে।

২। সঠিক Topics টি নির্বাচন করুন- অনেক ওয়েবসাইটেই দেখা যায়, তাদের পোস্টগুলা অনেক পুরাতন বিষয় নিয়ে যেটা এখন আর তেমনভাবে ব্যাবহার করা হচ্ছে না। তাহলে স্বাভাবিকভাবেই পাঠকগন সেই লেখাটা পড়তে তেমন উৎসাহ দেখাবে না। তাহলে অবশ্যই আপনাকে বর্তমান অবস্থার কথা চিন্তা করেই টপিকস নির্বাচন করতে হবে। তাই বলে এই না যে টার্গেটিং টপিকস টাই আপনার টার্গেটিং  কিওয়ার্ড। আপনাকে অবশ্যই একটা আর্টিকেলের মাঝে কিছু মূল্যবান টপিকস রাখতে হবে।

৩। সঠিক সাইট নির্বাচন করা । সঠিক টপিকস নির্বাচন করার পরে আপনার প্রধান দায়িত্ব হবে কোথায় আপনি আপনার পোস্টটি করবেন। সাইট খোজার সময় আপাকে অবশ্যই কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমন, সাইটের ডোমেইন অথরিটি, পেজ অথরিটি, পেজ র্যা ঙ্ক ইত্যাদি। তারপর যে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে সেটি হল, সাইটটি আপনার পোস্টের সাথে রিলেটেড কিনা। কি পরিমান সোশ্যাল Activities আছে, কেমন ভিসিটর আসে, কেমন শেয়ার হয় এই বিষয়গুলাও মাথায় রাখাটা জরুরি। মনে রাখবেন, সোশ্যাল শেয়ারিং আপনাকে আপনার টার্গেটে পৌছাতে অনেক বড় ভুমিকা পালন করবে। আবার ডোমেইন অথরিটি ভাল হলে আপনি এক্সট্রা SEO বেনিফিট পাবেন। তাই আপনাকে অবশ্যই সঠিক সাইটটি নির্বাচন করতে হবে।

৪। কোয়ালিটি বজায় রাখা একজন বিজনেস Owner হিসেবে আপনাকে অবশ্যই আপনার লেখার কোয়ালিটি ঠিক রাখতে হবে। এটা আপনাকে অনেক হেল্প করবে। আপনার লেখার মাঝে যেন অবশ্যই পাঠকের শিক্ষামুলক কিছু থাকে সে বিসয়ে আপনাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে।

আপনি যদি উপরের বিষয়গুলো মাথায় রেখে, গুগল ওয়েবমাস্টার গাইডলাইন ফলো করেন তাহলেও আপনি আপনার পোস্টটির মাধ্যমে আপনার বিজনেসকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন যদি আপনার লেখার মাঝে কিছু শেখার থাকে।
আমার ওয়েবসাইট – PhoneDokan

আরো পড়ুনঃ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*