বিধ্বংসী ঝড়ে ভাঙল বাড়ি ; ক্ষতিগ্রস্ত বহু


বিধ্বংসী ঝড়ে ভাঙল বাড়ি ; ক্ষতিগ্রস্ত বহু

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি


আজ সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রামগতি উপজেলার মেঘনার উপকূলীয় বড়খেরী, চরগাজী, চর আবদুল্লা, চর আলগী, চর রমিজ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় ঘূর্ণিঝড় হয়। বিকেলে রামগতি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল ওয়াহেদ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। এবং ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দেন। ঝড় শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যায়।

উপজেলার বড়খেরী ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান হাসান মেহমুদ ফেরদৌস, চরগাজী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাওহীদুল ইসলাম সুমন ঝড়ে প্রায় দুশো ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর জানিয়েছেন। তাঁরা আরও জানান, ঝড়ে ইউনিয়নের বেশ কয়েকশো একর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে।

বড়খেরী ইউনিয়নের বাসিন্দা আবদুল মতিন বলেন, সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া ঝড়ে তাঁর ঘরবাড়িসহ ওই এলাকার অনেকের ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়। চরলক্ষ্মী এলাকার মহম্মদ জনি জানান, তিনি প্রায় চার একর জমিতে মাছ চাষ করেছেন। ঝড় ও জোয়ারের জলে তাঁর মৎস্য খামার সম্পূর্ণ ভেসে গেছে। এতে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

রামগতি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল ওয়াহেদ বলেন, তিনি সরেজমিনে বড়খেরী ও চরগাজী ইউনিয়নে গিয়েছিলেন। ঘূর্ণিঝড়ে অন্তত দুই ইউনিয়নের দুশো ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বড়খেরী ও চর আলগী ইউনিয়নে দুটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ঝড়ে মৎস্য খামার, পোলট্রি খামার ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

  

উপজেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন আধিকারিক জানান, গতসকালে রামগতি উপজলার উপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে যায়। এতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয়ের কাজ চলছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*