দেখে নিন সেনাবাহিনী ও অস্ত্রে বিশ্বে প্রথম পাঁচে কোন দেশ?


শত্রুপক্ষের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করার স্বার্থে সীমান্তে নিরাপত্তার কাজে নিযুক্ত থাকেন সেনারা৷ চরম প্রতিকূলতা, কঠোর পরিস্থিতির মাঝেও এরা সর্বদা নিজেদের কাজে নিযুক্ত থেকে শত্রুপক্ষের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করে৷ তবে, শুধুমাত্র দক্ষ সেনা হলেই চলবেনা৷ প্রয়োজন রয়েছে অত্যাধুনিক সামরিক অস্ত্রশস্ত্রও৷

সামরিক শক্তিতে বিশ্বের প্রথম সারির পাঁচটি দেশ হল-

আমেরিকা: এই দেশের সেনাবাহিনীর জন্য প্রচুর পরিমাণে টাকা বরাদ্দ করে সরকার৷ আমেরিকার রয়েছে প্রায় ৩,৪৪৪টি এয়ারক্রাফট, ৮৮৪৮টি ট্যাংক, এবং ৪৭৩টি যুদ্ধ জাহাজ রয়েছে৷সম্প্রতি একটি সরকারি হিসেব থেকে জানা গিয়েছে, ডোনাল্ড ট্রাম্প সেনাবাহিনী এবং সামরিক অস্ত্রশস্ত্রের জন্য ৫৮১বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করেছে৷

রাশিয়া: রাশিয়ার সেনাবাহিনী বিশ্বের মধ্যে সবথেকে শক্তিশালী হিসেবে মনে করা হয়৷ এই দেশের সেনাবাহিনীর ভয়ে কাঁপে শত্রুদেশগুলিও৷ বিশ্বজুড়ে ৪লক্ষ ১৭হাজার ১১০জন রাশিয়ান সেনা রয়েছে৷ গড়ে ৪৬.৬বিলিয়ন টাকা বরাদ্দ করা হয়ে থাকে এই সেনাবাহিনীর জন্য৷

চিন: সামরিক ক্ষেত্রে যে পরিমাণ টাকা বরাদ্দ করা হয়৷ সেই বিচারে আমেরিকার পরেই রয়েছে চিন৷ প্রায় ২১৫.৭বিলিয়ন টাকা বরাদ্দ করা হয়ে থাকে৷ চিনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্বে রয়েছেন জেনারেল চ্যান ন্যাকুয়ান৷

ভারত: ভারতীয় সেনাবাহিনীও অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে সাজানো হচ্ছে৷ শত্রুপক্ষকে মোকাবিলা করার জন্য৷ এই দেশের মধ্যে রয়েছে ২০৮৬টি এয়ারক্রাফট, ৬৪৬৪টি ট্যাংক এবং ২০২টি যুদ্ধজাহাজ৷ ৫৩.৫বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করা হয়েছে এই দেশের সামরিক শক্তির উন্নয়নে৷ ভারতীয় সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ছাড়াও নৌবাহিনীকেও ঢালাওভাবে সাজানো হচ্ছে৷ ব্যালিস্টিক মিশাইলের উপরও বিশেষ জোর দেওয়া হয় এই দেশে৷ প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নির্মলা সীতারমন নিযুক্ত হওয়ার পর দেশের সামরিক ক্ষেত্রে বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে৷

ফ্রান্স: যেকোনও আন্তর্জাতিক যুদ্ধে ফ্রান্স সবসময়ই একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে৷ ভারতে ৩৫বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করা হয় সামরিক ক্ষেত্রে৷ এই দেশের মধ্যে রয়েছে ১২৮২টি এয়ারক্রাফট, ৪২৩টি ট্যাংক এবং ১১৩টি যুদ্ধজাহাজ৷

 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*