গোলাপি নিপল পাবার উপায় | Bangla Health Tips

প্রতিকার চাওয়ার আগে চলুন আপনার স্তনের উপর কিছু সাধারণ তথ্য জেনে নিন (Before getting into the remedies, you might like to know some common facts on shades of nipples)

  • স্তনের বিভিন্ন রঙের হতে পারে যেমন গোলাপী, লাল, বাদামি, কালো, ইত্যাদি।
  • আমাদের স্তন জন্ম থেকে বার্ধক্য, গর্ভাবস্থাকে থেকে বয়ঃসন্ধি পর্যন্ত বিকশিত হয়।
  • প্রাথমিকভাবে আমাদের স্তন গোলাপী রঙের হয়। রঙ এবং আকার শারীরিক পরিবর্তনের সঙ্গে বিভিন্নমুখী হতে শুরু করে।
  • অনেক কারণ আমাদের স্তনের রঙের পরিবর্তন ঘটায়। এর মধ্যে কিছু সাধারণ কারণ যেমন জিনগত অবস্থা, মাসিক, গর্ভাবস্থা, বয়ঃসন্ধি , বুকের দুধ খাওয়ানো, ওষুধ, চামড়া মর্দন ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করা যায়।
  • স্তনের ত্বকের পার্শ্ববর্তী অংশের এউমেলানিন (Eumelanin) বা বাদামী রঙ্গক (brown pigment ) এবং ফেওমেলানিন (Pheomelanin) লাল রঙ্গক (red pigment) এই দুই কারণে নিয়ন্ত্রিত হয়। এই রঙ্গকের বিস্তার আমাদের ব্রণ বা ফোড়ার চারপাশের গোলাকার অংশকে লালচে করে দেয়।
  • স্তনের রঙ চামড়ার প্রকৃতির উপর নির্ভর করে, যেটা আবার বংশগ ত ভাবে পরিবর্তিত হতে পারে। ককেশীয় (Caucasians ) অঞ্চলে গোলাপী স্তণ, দক্ষিণপূর্ব এশিয়াতে (Southeast Asians) বাদামী স্তণ, আফ্রিকার (Africans) কালো স্তণ ইত্যাদি দেখা যায়।
  • পুরুষরা সাধারণত গাঢ় রঙের স্তন যুক্ত নারী বেশি পছন্দ করে। তাই আপনি এই সমাধান গুলি ব্যবহার শুরু করার আগে নিশ্চিত করুন যে এ ব্যাপারে আপনার সঙ্গীর এর সম্মতি আছে কি না!
  • ইউ এস -এর সাদা চর্ম যুক্ত ১২% সুন্দরীরা বিশ্বাস করে তাদের স্তনের জন্য গাঢ় রং প্রয়োজন কারণ তারা স্বাভাবিক ভাবেই গোলাপি রং পায়। তারা বিশ্বাস করে গাঢ় রং অধিক যৌন আবেদন ময় হয়।

গোলাপী স্তনের জন্য ঘরোয়া প্রতিকার (Home remedies for pink nipples)

উপরের সব তথ্য পড়ার পরও যদি আপনি এখনও আপনার সিদ্ধান্ত অটল থাকেন, তাহলে আমরা আপনার স্তনকে উজ্জ্বল এবং গোলাপি করার জন্যে কিছু সমাধান জানাতে পারি:

  1. লেবুর নির্যাস (Lemon extract):লেবুর রস এই কারণে বহুল পরিমাণে ব্যবহার করা হয়। লেবুর রস পিষে নিন এবং মধু ও দই যোগ করুন। এটি স্তনের উপর প্রয়োগ করুন এবং শুকিয়ে যাওয়ার জন্যে ৩০ মিনিট সময় দিন। তারপর এটাকে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুন।
  2. বাতাবি লেবু (Lime):লেবুর রস বের করে এতে মধু যোগ করুন। এই মিশ্রণ আপনার স্তনের বোঁটায় প্রয়োগ করুন এবং এটি শুকিয়ে যেতে ৩০ মিনিট সময় দিন। এটাকে মুছে ফেলুন এবং সপ্তাহে একবার এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুন। লেবু আম্লিক হওয়ায় আপনার ত্বক থেকে মৃত কোষ তুলতে সাহায্য সাহায্য করে এবং আপনার স্তনকে দেয় নবীন চেহারা।
  3. ময়েসটনার (Moistener):লেবুর সাথে আপনি লাইটনিং ক্রিমও ব্যবহার করতে পারেন। আপনার স্তনের উপর এরকম মলম যেমন ভেসলিন (Vaseline), লিপ বাম (lip balm ) বা শিয়া মাখন (shea butter )প্রতি রাতে লাগান, এটা আপনার স্তনকে সতেজ রাখে। পরের দিন সকালে স্নান করার সময়, এই অংশটি ভাল করে পরিষ্কার করে নিতে ভুলবেন না। এটি বিশেষত ব্রণ প্রতিরোধ করে।
  4. বাদাম (Almonds):বাদাম আপনার স্তনের রং পরিবর্তন করতে খুব সাহায্য করে। আপনি ব্লেন্ডারে দুধ ও বাদাম ভাল করে পিষে নিন এবং নির্দিষ্ট অংশে প্রয়োগ করুন। এছাড়াও আপনি বাজার থেকে বাদাম তেল কিনতে পারেন এবং নির্দ্বিধায় ব্যবহার করতে পারেন। আপনি এটাকে এক ঘন্টা রেখে দিন এবং তারপর এটা আপনি মুছে ফেলুন এবং পরিষ্কার করে ফেলুন। উল্লেখযোগ্য ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত এটি পুনরাবৃত্তি করতে থাকুন।

স্তনের সুন্দর রং পাওয়ার পাশাপাশি, আমদের মনে রাখতে হবে যে আমাদের স্তনের ভাল স্বাস্থ্যও। আপানর খাদ্য তালিকা, শরীর চর্চা, শরীরকে ব্যবহার করা ইত্যাদির প্রভাব আপনার স্তন এবং বোঁটায় পড়ে। চলুন আমারা এই জন্য কিছু টিপস জেনে নিই :

  • সঠিক খাদ্য ব্যবহার (Proper food consumption):অনেক অধ্যয়ন ও গবেষণায় প্রমানিত হয়েছে যে কিছু স্তন ক্যান্সার (breast cancer) প্রতিরোধ করতে পারে। এই ধরণের ফল এবং শাকসবজিতে যা অ্যান্টি – অক্সিডেন্ট সমূহের (antioxidants ) উপস্থিতি থাকে এবং এগুলি গ্রহণ করলে আপনার জন্যে যত্নও নেয়। আপনার স্তনের যত্নের জন্যে তিসি দানা (flaxseeds), আখরোট (walnuts), মাছের তেলের ওমেগা -3 ফ্যাটি (omega-3 fatty acids in fish oil), ক্র্যানবেরি (cranberries), ডিম (eggs), অ্যাভোকাডো (avocados) ইত্যাদি আপনার খাদ্য তালিকায় যোগ করা আবশ্যক।
  • ব্যায়াম (Exercise):এক সপ্তাহের মধ্যে 4 ঘন্টার জন্য শরীর চর্চা করলে শরীরে ইস্ট্রজেন (estrogen ) এর মাত্রা কমে যায় এবং আপনি স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম হয়।
  • ধূমপান বন্ধ করুন (Stop smoking):ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্যে অনেক রোগ নিয়ে নিয়ে আসে। এর মধ্যে আছে স্তন ক্যান্সার (breast cancer) এবং গর্ভ ধারণে বাধা (pregnancy hindrances)। যে সব নারী ধূমপান করেন তাঁদের স্তন ক্যান্সার (breast cancer) এর সম্ভাবনা অ – ধূমপায়ী নারীদের থেকে ৩০% বেশি।
  • মদ্যপান বন্ধ করুন(Stop drinking):এটা ধূমপানের মত অত ক্ষতিকর নয়। অল্প পরিমাণে এলকোহল ঠিক কিন্তু অধিক পান শুধুমাত্র আপনার শরীরের অঙ্গের ক্ষতি করে তাই নয়, এটা আপনার পেশীকে শক্ত করে দেয়। গবেষণা থেকেও প্রমাণিত হয় অত্যধিক মদ্যপানের জন্যে স্তন ক্যান্সার (breast cancer) হতে পারে।
  • নিদ্রা কালীন দেহ ভঙ্গী (Sleeping posture):ভাল ভাবে স্তন বৃন্তের যত্নের জন্য আপনার শোওয়ার অবস্থান প্রতি সতর্ক হন। আপনার পেটের উপর শুলে আপনার স্তন এবং পাকস্থলীর উপর চাপ পড়ে এবং একে বাড়তে দেয় না।এটি একদমই আপনার জন্য স্বাস্থ্যকর নয়।

সব শেষে, আপনার মনে রাখা উচিত যে সমগ্র স্তনের স্বাস্থ্য ভাল থাকলেই আপনি উজ্জ্বল এবং ভাল স্তন পাবেন। আপনি আপনার পছন্দের প্রতিকার ব্যবহার করা শুরু করুন, খুব শীঘ্রই আপনি এই অংশে উন্নতি করতে পারবেন।

কিছু পরামর্শ (Tips)

  • মাল বেরি নির্যাস (Mulberry extracts) : আপনি মাল বেরি (Mulberry) বা ল্যাকটিক অ্যাসিড (lactic acid) ব্যবহার করতে পারেন কারণ এগুলি ভিটামিন সি (vitamin C) এর ভাল উৎস হিসেবে কাজ করে। এগুলির সাহায্যে খুব সহজেই স্তনের বোঁটাকে উজ্জ্বল করা যায়। ব্রণ বা ফোড়ার চারপাশের ত্বকে যে কালো দাগ তৈরি হয় সেই অংশকে বিবর্ণ করে এখানে নতুন ত্বক উৎপন্ন হয়। ফলে আপনার ত্বক হয়ে ওঠে গোলাপি।
  • অ্যাব্রুটিন (Arbutin) : এই স্তনকে উজ্জ্বল করে। এটা কালো চামড়া অপসারণ করে এবং নতুন কালো চামড়া তৈরি হতে বাধা দেয়। এটা ত্রায়সিনেজ (tyrosinase) কমিয়ে ফেলে এবং মেলানিন (melanin) উৎপন্ন করে।
  • আপনি কমলালেবু, শসা, মধু, দুধ এবং অ্যাভোকাডো ব্যবহার করতে পারেন। যদি আপনার কাছে উপরে উল্লিখিত উপাদানগুলো না থাকে। এগুলোও ত্বককে উজ্জ্বল করতে গুরুত্ব পূর্ণ ভাবে সাহায্য করে।
  • ভিটামিন সি (vitamin C ) এর বিকল্প গুলি গ্রহণ করুন কারণ এগুলি কালো চামড়া তৈরি হতে বাধা দেয়। ভিটামিন সি ((vitamin C ) ) এন্টি – অক্সিডেন্ট (anti-oxidant ) – এর একটি ভাল উৎস যা শুধুমাত্র আপনার শরীরের অংশকে উজ্জ্বল করে তাই নয়, এটির ব্যবহারে আপনি পান একটি প্রখর দীপ্তি এবং আপনি হয়ে ওঠেন স্বাস্থ্যকর।
  • কমলা লেবু নিয়ে একটি জুস তৈরি করুন এবং তারপর এটি নির্দিষ্ট এলাকায় এটি প্রয়োগ করুন। এটা ভাল ভাবে শুকিয়ে যেতে দিন। দ্রুত ফল পাওয়ার জন্য এক দিন অন্তর পুনরাবৃত্তি করুন। আপনি ত্বকে জ্বলুনি বা চুলকানি হয় তাহলে অন্য উপাদান ব্যবহার করুন।
  • এছাড়াও আপনি এই উদ্দেশ্যে যষ্টিমধু (Liquorice ) ব্যবহার করতে পারেন। এটিও আপনার জন্যে একই কাজ করে। আপনি আপনার স্তনের এবং যোনি দেশ পরিষ্কার করার জন্যেও এই যষ্টিমধুর নির্যাস ব্যবহার করতে পারেন। আপনার শরীরের সহ্য ক্ষমতা অনুযায়ী আপনি এটাকে ঠাণ্ডা বা গরম ব্যবহার করতে পারেন। আপনি প্রাকৃতিক ভাবে এগুলি না পান, তাহলে আপনি একটি পাওডার কিনতে পারেন এবং তারপর এটিকে জলে যোগ করুন। নির্দিষ্ট অঞ্চলের উপর এটি প্রয়োগ করুন এবং আপনি দেখতে পাবেন এটি অন্যান্য প্রতিকারের চেয়ে দ্রুত কাজ করে।
  • পরিশেষে, এটা মনে রাখতে হবে যে আমাদের শরীর অনেক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায় এবং আমরা বেড়ে ওঠার সাথে আমাদেরকে বিভিন্ন অবস্থার সাথে মানিয়ে নিতে হবে। মাঝে মাঝে আমরা নিজেদের ভাল চেহারা তৈরীর কাজে সফল হয়, কিন্তু আমদেরকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে আমরা সবাই অদ্বিতীয়, অনন্য এবং চিরকাল সুন্দর।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*